status

হবু চন্দ্র রাজারা এবং তাদের আংশিক লকডাউন

ভিড় অর্ধেক করতে হবে। কীভাবে? দু একটা গবেট খুঁজে পেলেও পেতে পারেন, যাদের হিসেব বলবে ট্রেন বন্ধ করতে হবে, বাস কমাতে হবে। দুর্ভাগ্য এই, সেরকম গবেটদেরই আমরা মন্ত্রী সান্ত্রি বানিয়ে রেখেছি!! ঢের সোজা, তুড়ি মেরে লকডাউন ঘোষণা করা! এ পোড়া দেশে গরীবের পেটে ঝাঁপ ফেলতে তত কসরত করতে হয় না!!!

একটি দুঃস্বপ্ন, সঙ্গে কোভিড

টাক মাথা, সাদা দাড়ি, হাওয়াই চপ্পল, ক্লিন শেভিত সব মুখ টিভিতে দেখা যাচ্ছে বটে। তবে ভোট ভিক্ষার পাত্র নিয়ে, গদির টিকিট চাইতে! কী আর করা যাবে। এ পোড়া দেশে নেতা নির্বাচন হয় সিয়াচেনে যুদ্ধ করবে বলে। অজানা ভ্যাক্সিন সিলেবাসেই নেই!

ধর্মেও নেই, জিরাফেও নেই

বিশেষত ভারতের মত দেশে, যেখানে প্রযুক্তি আর তার হাত ধরে ইনফরমেশন আগে আগে এসে গেছে, অথচ মূল্যবোধের শিক্ষাটা ঠিক তারে বাঁধার ব্যবস্থা হয় নি, সেখানে পুরো পাবলিকের একসঙ্গে এই উন্নাসিকতা ভয়ঙ্কর। আজকের সমাজে অনেক কিছুর যে অবনমন দেখতে পাস, তার মূলে হয়তো এটাই, যে আজ আমরা ধর্মেও নেই, জিরাফেও নেই।

অধ্যাপক, ছাত্রী, আর আমরা

১) সুলোচনার প্রেমে পড়েছিলাম তার প্রখর যুক্তিবাদী মনোভাবে আকৃষ্ট হয়ে। কত আপাত তুচ্ছ ঘটনাকেও অত সূক্ষ্মভাবে বিচার করতে কাউকে দেখি নি। আর আমার যা স্বভাব, যুক্তিতে হেরে গেলেই দুম করে প্রেমে পড়ে যাই। সুলোচনার প্রেমে পড়েছিলাম তার চোখ দুটোর জন্যে। তার সঙ্গে ঠোঁটের কোণে ওই ছোট্ট তিল। মনে হয়েছিল ওই মুখশ্রী আমার চাইই চাই। এতে …

অধ্যাপক, ছাত্রী, আর আমরা Read More »

মানে বই

ক্লাসে সবাই ফার্স্ট হয় না, জীবনেও সবাই অত ‘সফল’ হয় না। তাছাড়া এত সাফল্যে কাজ নেই। সফল হওয়াটাই জীবনের মূল উদ্দেশ্য – এটাও মানে বই এর শেখানো একটা গোলমেলে উত্তর। সাফল্যের পরীক্ষায় ১০ না পেয়েও মানুষ সুখী হতে পারে। একটা বেসিক প্রয়োজন মিটে গেলে ভালো থাকতে পারাটা একটা আর্ট।

স্বজন পোষণ চরিতকথা

আমার বিশ্বাস ক্যামেরার সামনে এক গাদা টেক নিয়ে অভিনয় যে কেউ করে দিতে পারে। কিন্তু ভাবুন আপনি নিজে ডাক্তার বলে আপনার ছেলেকেও ঢুকিয়ে দিলেন আপনার চেম্বারে। কিন্তু একটা রোগীর কিছু একটা হয়ে গেলে যখন রোগীর বাড়ির দশ জন লোক আপনার বাড়িতে হানা দেবে, কোথা দিয়ে উড়ে যাবে স্বজনপোষণ।

হেরে গেলাম, নাকি জিতে গেলাম?

China vs India

আমাদের ২০ জন মারা গেলো। ওদের X জন। আপাতত নাকি আলাপ আলোচনা করে দু পক্ষেই সেনা সরিয়ে নিয়েছে গোলমালের জায়গা থেকে। কিন্তু ৭০ বছর ধরে চলা বিবাদে কিছু সুরাহা হল কি? কার বাউন্ডারী কত খানি, সে নিয়ে তো মীমাংসা কিছুই হল না। আজ থেমে থাকলেও কাল তো আবার চলবে ঘুষোঘুষি, সীমান্তে। আর তজ্জন্যে দেশের ভেতরে, অনেকটা ভেতরে, অনেক মানুষ যে গরীব রয়ে গেলো, সেটাতে সময় দেওয়া সম্ভবপর হবে না। দু দেশেই। তাহলে কেউই তো জিতল না মশাই? সেখানে এই নাম্বার নিয়ে খেলে ক্ষতি বই লাভ তো কিছু নেই! হিসাবটা তো সোজাই।

সুইসাইড – গ্লাসটা আদ্ধেক ভর্তি, না খালি?

Is the glass half filled, or half empty?

 ভাবুন, অঙ্ক পরীক্ষায় বসে বসে দরদর করে ঘামেন না। ন্যাশনাল লেভেলে অলিম্পিয়াড জিতে বসে আছেন। কিংবা, ১১ টা ইঞ্জিনিয়ারিং পরীক্ষা ক্র্যাক করে ফেলেছেন। ভাবছেন কোন কলেজে পড়বেন। অথবা ধরুন, আপনি একটু মুচকি হেসে দিলেন- অমনি একশ জন হাজির হাতে গোলাপ ফুল নিয়ে। আপনার ব্যাপারটা জানি না মশাই। তবে আমাকে যদি এর একটাও কেউ অফার করে, …

সুইসাইড – গ্লাসটা আদ্ধেক ভর্তি, না খালি? Read More »

আরেকটা বৃষ্টির গল্প – ২৩ শে জুন, ১৭৫৭

প্রকৃতির কাছে পুতুল আমরা। আধ ঘণ্টার খামখেয়ালিপনায় সে লিখে দিতে পারে একটা দেশের পরবর্তী ২০০ বছরের ইতিহাস। সেই ২০০ বছর থেকে বেড়িয়ে আসতে আরও কত শত বছর পেরিয়ে যাবে, সে হিসেব নাহয় রাখবেন ইতিহাসবিদরা।

উম্পুনে কলকাতা – উত্তর কোরিয়াও জ্ঞান দেয় মাঝে সাঝে!

মাঝে মাঝে মনে হয় ক্লাস এর ‘bad boy’ থেকেও কিছু জিনিস শেখা যেতেই পারে। উত্তর কোরিয়ায় শীত কালে তুষার পড়ে রাস্তা ব্লক হলে কি হয়? জনগণই অফিস যাবার আগে নিজেরা বেলচা টেলচা নিয়ে তুষার সরিয়ে দেয়। এটাই তাদের ডিউটি।

A Soliloquy
A bilingual blog in Bengali and English. © A Soliloquy